মাদারীপুরে এক সপ্তাহেও গ্রেপ্তার হয়নি মাদ্রাসা ছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় জড়িতরা

জহিরুল ইসলাম খান: মাদারীপুর সদর উপজেলার ছিলারচর দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী ইতি আক্তারকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় ৭ দিন অতিবাহিত হলেও কোন আসামী গ্রেপ্তার না হওয়ায় এলাকাবাসী ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
গত তিনদিন ছিলারচর দাখিল মাদ্রাসা, শেখ ফজিলাতুন্নেছা স্কুল এন্ড কলেজ এই দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে ছিলারচর বাজারের ব্যবসায়ীরা তিনটি মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেন।
শেখ ফজিলাতুন্নেছা স্কুল এন্ড কলেজের সামনে মঙ্গলবার দুপুরে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ছিলারচর ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল সরদার, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জয়নাল মোড়ল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি নাসিরউদ্দিন লিটন, ছিলারচর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য রিপন হাওলাদার প্রমুখ।
এখানে বক্তরা বলেন, ছিলারচর দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী ইতি আক্তারের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা অতি লজ্জাজনক। নির্জন স্থানে নিয়ে হাত-পা বেঁধে তাকে হত্যা চেষ্টা চালায় দুবর্ৃৃত্তরা। ঘটনার এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও কোন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। দ্রুত দোষীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানান তারা।
উল্লেখ্য, গত ২৫ জুলাই মঙ্গলবার দুপুরে ছিলারচর দাখিল মাদ্রাসা ছুটির পর বাড়ি ফেরার পথে সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ইতি আক্তারকে অপহরণ করে নিয়ে যায় চার দুর্বৃত্ত। তারা ইতির হাত-পা বেঁধে পাশের শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের লক্ষ্মীকান্তপুর গ্রামের একটি নির্জন কলাবাগানে নিয়ে যায়। এ সময় তারা হত্যার জন্য ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ দিলে ইতির চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরের দিন সদর থানায় ওই এলাকার রশিদ খানের ছেলে হুমায়ন খানকে প্রধান আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন শিক্ষার্থী ইতির পরিবার।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মাদারীপুর সদরের আঙ্গুলকাটা তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রদীপ সরকার বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে আসামীরা পলাতক রয়েছে। আমরা বিভিন্ন উপায়ে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছি।’